Photobazar24
শুক্রবার / ২২শে সেপ্টেম্বর ২০১৭

নাগরিক সুবিধা বাড়ানোই লক্ষ্য বিরামপুরে

আপডেট: 2017-03-21 20:14:43
নাগরিক সুবিধা বাড়ানোই লক্ষ্য বিরামপুরে

বাবার অসম্পূর্ণ স্বপ্ন বাস্তবায়ন ও নাগরিক সুবিধা আরো বাড়ানোর জন্য কাজ করবেন সদ্য নির্বাচিত মেয়র লিয়াকত হোসেন টুটুল। বিরামপুর পৌরসভার সাবেক মেয়র মরহুম হোসেন আলী সরকারের ছেলে তিনি।

দিনাজপুর: বাবার অসম্পূর্ণ স্বপ্ন বাস্তবায়ন ও নাগরিক সুবিধা আরো বাড়ানোর জন্য কাজ করবেন সদ্য নির্বাচিত মেয়র লিয়াকত হোসেন টুটুল। বিরামপুর পৌরসভার সাবেক মেয়র মরহুম হোসেন আলী সরকারের ছেলে তিনি।

বিরামপুর শহরকে আধুনিক করে গড়ে তোলার ইচ্ছা তার। সম্প্রতি বাংলানিউজকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছেন এ পৌর শহর নিয়ে তার স্বপ্ন, ভবিষ্যত পরিকল্পনা এবং দায়িত্ব-কর্তব্যের কথা।

২০১৫ সালের ৩১ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত বিরামপুর পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে (নারিকেল গাছ প্রতীক) নির্বাচনে অংশ নেন লিয়াকত হোসেন টুটুল। ৯ হাজার ৭৮৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন তিনি।

লিয়াকত হোসেন টুটুল ১৯৭১ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর বিরামপুর শহরের পূর্ব জগন্নাথপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। বিরামপুর মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে শিক্ষা জীবন শুরু হয়। পরে বিরামপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে উচ্চ মাধ্যমিক ও বিরামপুর ডিগ্রি কলেজ থেকে বিএ পাশের মাধ্যমে শিক্ষা জীবনের সমাপ্তি হয়। ছোট থেকেই বাবা হোসেন আলী সরকারকে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত থেকে জনগণের সেবা করতে দেখেই রাজনীতিতে প্রবেশ করেন টুটুল।

মেয়র টুটুলের বাবা বিরামপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে ১৭ বছর ও মেয়র হিসেবে ২০১৪ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। বিরামপুর পৌরসভার প্রশাসকও ছিলেন তিনি।

লিয়াকত হোসেন টুটুল বাংলানিউজকে বলেন, আধুনিক বিরামপুর পৌরসভার রূপকার আমার বাবা মরহুম হোসেন আলী সরকার। এ পৌরসভাকে প্রথম শ্রেণিতে উন্নীত করেছেন তিনি। আমি তার অসম্পূর্ণ স্বপ্ন পূরণে কাজ করবো। বিরামপুর পৌর এলাকার বাসিন্দাদের সব ধরনের নাগরিক সুবিধা বাড়ানো হবে। সেই সঙ্গে বিরামপুর শহরকে ডিজিটাল শহরে রূপান্তরিত করতে এরইমধ্যে প্রয়োজনীয় পরিকল্পনা তৈরি করা হয়েছে।

তিনি বলেন, বাস্তবায়নের জন্য চাই সবার দোয়া ও আশীর্বাদ। বাবার রেখে যাওয়া ইমেজ ধরে রাখতে প্রয়োজনীয় সব সুবিধা দিয়ে যাবো নাগরিকদের।

বাবার অসম্পূর্ণ স্বপ্ন কি জানতে চাইলে তিনি বলেন, কোনো মানুষ যেনো অনাহারে দিনাতিপাত না করে, বিনা চিকিৎসায় কারো মৃত্যু যেনো না হয়। এছাড়াও আরো কিছু বিষয় রয়েছে, যেগুলো পূরণে আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাবো।



সর্বশেষ খবর