Photobazar24
শুক্রবার / ২২শে সেপ্টেম্বর ২০১৭

লেখাপড়ায় এগিয়ে যাচ্ছে প্রতিবন্ধি ফজলু  

আপডেট: 2017-03-21 20:21:36
লেখাপড়ায় এগিয়ে যাচ্ছে প্রতিবন্ধি ফজলু  

জন্মগতভাবে দুটি হাত ও একটি পা নেই সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলার ফজলুর রহমানের। কিন্তু প্রবল ইচ্ছা শক্তি দিয়ে শারীরিক প্রতিবন্ধকতাকে হার মানিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে সে।

পিএসসিতে জিপিএ ২.১৭ ও জেএসসিতে জিপিএ ৩.৭৫ পায়। সে উপজেলার ধুকুরিয়াবেড়া ইউনিয়নের মেটুয়ানী উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণির ছাত্র। শারীরিক প্রতিবন্ধী স্কুলছাত্র ফজলু একই ইউনিয়নের চক গোপালপুর গ্রামের সাহেব আলীর ছেলে।

ফজলুরের সাথে কথা বলতেই তার দুই চোখ পানিতে ভিজে যায়। বলে, ‘আমি যখন স্কুলে যাই অনেক কষ্ট হয়। প্রতিদিন যাওয়া আসায় ৩ কি মি রাস্তা। ১ পায়ে লাফিয়ে লাফিয়ে স্কুলে যাই।

আর আমার বোন যেদিন স্কুলে যায় না সেদিন আর কেউ আমার বই নেয় না আমার স্কুলে যাওয়া হয় না। আবার বৃষ্টি হলে স্কুলে যেতে পারি না। আমার প্রায় সব কাজ মা করে দেন।

তবে আমাকে যদি সবাই লেখাপড়া করার জন্য সাহায্য করে তাইলে আমি লেখাপড়া শেষ করে প্রতিবন্ধীদের জন্য কাজ করবো।’ ফজলুর বাবা সাহেব আলী বলেন, ‘অভাব অনটনের সংসার যা রোজগার করি তা দিয়ে সংসার চালাতেই হিমশিম খাই।

ফজলুর লেখাপড়া ভাল করলেও আমার টাকা না থাকায় ওকে অনেক বই কিনে দিতে পারি না। ফজলুর প্রতিবন্ধী কার্ড আছে ওখান থেকে কিছু হলেও লেখাপড়া করার কাজে লাগে।

জমি বলতে ৪ শতাংশ বাড়ি। সারাদিন অন্য ক্ষেত্রে কাজ করি ১৫০/২০০ টাকা পাই তা দিয়ে ৯ জনের সংসার চালাই।’ ছোটবোন আসমা খাতুনই ফজলুকে স্কুলে যাতায়াতে সাহায্য করে। ফজলুর সঙ্গে এক ক্লাসে লেখাপড়া করে।

বাবা-মা, দুই ভাই ও চার বোন নিয়ে তাদের সংসার। তিন বোনের বিয়ে হয়েছে। বড় ভাই তাঁতের কাজ করে। বাবা-মা দিন মজুর। মা সারা খাতুন এই প্রতিবেদককে বলেন, ‘২০০০ সালের ফজলু বিকলাঙ্গ অবস্থায় জন্ম নেয়।

আমরা স্বামী-স্ত্রী কেউ লেখাপড়া জানি না। ছোট মেয়ে আসমা ফজলুকে লেখাপড়া করায়। ফজলুর দু’হাত ও এক পা না থাকলেও কিছু কিছু কাজ নিজেই করতে পারে বলে জানান তিনি।’

মেটুয়ানী উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক (কৃষি) আইয়ুব আলী জানান, ২০১৪ সালে ফজলু এই বিদ্যালয়ে ভর্তি হয়। সে লেখাপড়ায় ভালো, স্মরণশক্তিও প্রখর।

তারা দুই ভাইবোন আমাদের স্কুলেই লেখাপড়া করে। সবার সহযোগিতা পেলে ফজলু লেখাপড়া করে মানুষের মতো মানুষ হতে পারবে আমাদের সকলের বিশ্বাস।



সর্বশেষ খবর