Photobazar24
শুক্রবার / ২২শে সেপ্টেম্বর ২০১৭

ফেস্টিভ্যালকে আমরা নিজের জীবনের চাইতেও বেশি গুরুত্ব দিয়ে ফেলেছি’

আপডেট: 2017-03-21 20:29:04
ফেস্টিভ্যালকে আমরা নিজের জীবনের চাইতেও বেশি গুরুত্ব দিয়ে ফেলেছি’

মোস্তফা সরয়ার ফারুকী— প্রতিভাবান ও প্রভাবশালী চলচ্চিত্রকার। বাংলাদেশের তরুণ সিনেমাপ্রেমীদের আইকন। বাংলাদেশের সিনেমাজগতে সবচেয়ে প্রভাবসঞ্চারি এই পরিচালকের সঙ্গে কথা হলো তার নিকেতন কার্যালয়ে। কথা হলো সিনেমা নিয়ে শুরু থেকে ডুব পর্যন্ত। ডুবের পরের কথাও হলো। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন পরিবর্তন ডটকমের নির্বাহী সম্পাদক মাহবুব মোর্শেদ। সাথে ছিলেন বিনোদন প্রতিবেদক আহমেদ জামান শিমুল ও ফটো জার্নালিস্ট ওসমান গণি। পড়ুন সাক্ষাৎকারটির দ্বিতীয় পর্ব। প্রথম পর্ব পড়তে ক্লিক করুন এখানে 
পরিবর্তন : যখন আমি একটা শখের ভিডিও বানালাম আর সেটার মূল টার্গেট হিট ও টাকা কামানো, আমিও জানি আপনি আমাকে ফিল্মমেকার বলবেন না। তারা কিন্তু দাবি করছে না আমরা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী হতে চাই।
ফারুকী : কিন্তু আমার বক্তব্যটা ওই জায়গায় যে তরুণ ফিল্মমেকারদের ফিল্ম বানানোর স্বপ্ন আছে, সে স্বপ্ন নিয়ে যখন তারা টেলিভিশনের জন্য কাজ করছে বা ইউটিউবের জন্য কিছু শর্টফিল্ম বানিয়ে আপলোড করছে— তাদের উদ্দেশে আমার বিনীত আহ্বান- এইটুকু উপলব্ধি যে, ফিল্মমেকিং ইজ নট অনলি এবাউট ম্যানেজেরিয়াল অর টেকনিক্যাল আসপেক্ট। ফিল্মমেকিংয়ের একটা ফিলোসপিক্যাল আসপেক্ট আছে, আর্টিস্টিক আসপেক্ট আছে। সেটার জন্য নিজেকে তৈরি করতে হলে সেটার জন্য পড়ার কোন বিকল্প নেই।
পরিবর্তন : এটা অন্য একটা জার্নি। একজন শিল্পীর জার্নি।
ফারুকী : ইয়া। আপনি কীভাবে নিজেকে তৈরি করবেন। আপনাকে দিন-দুনিয়া পৃথিবীর সবকিছু জানতে হবে। না জানলে আপনি হিউম্যান সাইকি বুঝবেন কীভাবে? বিশ্লেষণের জন্য প্রথমে তথ্য নেন, আপনার বিশ্লেষণী ক্ষমতা তৈরি হবে। তারপর বিশ্লেষণ করেন। আপনার বিশ্লেষণ যদি ক্ষুরধার না হয় তাহলে যাদেরটা ক্ষুরধার তাদেরগুলো পড়েন। দেন আপনারটাও ক্ষুরধার হবে। আই থিংক পড়াটা কাজ, পড়ে পড়ে নিজেকে প্রস্তুত করার একটা ব্যাপার আছে। যতগুলো বই পড়ছেন, একেকটা পিলার হিসেবে এর ওপর আপনি দাঁড়াচ্ছেন। এবং এটা গল্প বলার জন্য দরকারি। যেমন আমি একটা উদাহরণ দিই। আমি এখন ‘হলি আর্টিজেন’ স্ক্রিপ্ট করতেছি। এ স্ক্রিপ্ট করতে গিয়ে হলি বেকারিতে কী কী হয়েছে তা পড়লেই চলত। কিন্তু আমাকে এমন এমন বিচিত্র বই পড়তে হয়েছে যার মধ্যে ভারতীয় উপমহাদেশ নিয়ে বই আছে, এখানে আর্যরা কবে আসল, কেন আসলো, মুসলমানরা কবে ঢুকলো মুঘলরা কবে ঢুকলো, ঢোকার পর জমিদারদের সাথে সংকটা কী হল, পূর্ববঙ্গের সাথে পশ্চিমবঙ্গের ঐতিহাসিক সংকটটা কোথায়, ইখতিয়ার উদ্দিন বখতিয়ার খিলজি কখন ঢুকলেন। অ্যাপারেন্টলি ওই গল্পের মধ্যে এগুলোর কিছুই নেই। তারপরও গত চারমাস আমাকে বইগুলো পড়তে হয়েছে। ছবিটা যখন লোকে দেখবে ছবির মধ্যে এটার রেফারেন্স লোকে পাবে না। কিন্তু দর্শক জানে না এ এ বইগুলো না পড়লে আমি কোনদিন ছবিটা বানাতে পারতাম না। এখন এটা কীভাবে? এখন যদি আমি একটা মাস্টার ক্লাস নিই তাহলে আমি তাকে দেখাতে পারব— কোন বই থেকে ইন্সপারেশন নিয়ে কোন দৃশ্যটা তৈরি হয়েছে।



সর্বশেষ খবর